জেরুজালেম সংকট || ✍: অয়ন || ক্যারিয়ার ক্লাব অফ আর্টস ফ্যাকাল্টি (ক্যাফ) ||

এস এইচ/এস ই

১৭-১০-২০২০

This image is not found

 

ইসরায়েল ফিলিস্তিনের অমীমাংসিত রাজধানী বর্তমান বিশ্বের দীর্ঘসূত্রীয় চলমান বিরোধ মূলত জেরুজালেম সংকট নামে পরিচিত।

 

ফিলিস্তিনিদের উপর অবিরাম চলতে থাকা হামলাগুলো বিশ্ববিবেককে নাড়া দিয়ে যায়- বিশেষ করে গাজার হামলাগুলো! আমার লিখা গুলো আশাকরি মানুষকে এই ব্যাপারে সজাগ রাখতে ভূমিকা পালন করবে।  এবং বিশ্ব রাজনীতিতে এর প্রভাব বিশ্লেষণ করবো। 

 

১৯৪৮ সালে ইহুদিরা নিজেদের স্বাধীনতা দাবি করে দখল করতে শুরু করে আশপাশের এলাকা। ধর্মীয় ও রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ জেরুজালেমও মুসলমানদের কাছ থেকে দখল করে নেয় ইসরায়েল। অস্ত্রের শক্তিতে জেরুজালেম দখলদারির এই বিরোধই ইসরায়েলি-ফিলিস্তিনি সংকটের কেন্দ্রবিন্দু। তারপর থেকে দশকের পর দশক ধরে এই অঞ্চলে চলছে সহিংসতা। ইসরায়েলি আগ্রাসনে লেখা হচ্ছে নিরীহ ফিলিস্তিনিদের রক্তপাতের ইতিহাস—

 

ইসরায়েলি আগ্রাসনে ১০০ বছরের টানাপোড়নে ১৯৪৮ সালের আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর জেরুজালেম জর্ডানের নিয়ন্ত্রণে আসে। এখানে বসবাস করা ইহুদি বাসিন্দাদের উচ্ছেদ করা হয়। কিন্তু ১৯৬৭ সালের পর সব বদলে যায় এক নাটকীয় যুদ্ধে। সেই যুদ্ধের স্থায়ীত্বকাল ছিল মাত্র ৬ দিন। ১৯৬৭ সালের কথা। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল নিজেদের স্বাধীনতা ঘোষণা করলে প্রতিবেশী আরব দেশগুলো ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। ৬ দিন স্থায়ী সেই যুদ্ধে নাটকীয়ভাবে ইসরায়েল শুধু আরব দেশগুলোকে পরাজিতই করেনি, তারা মিসরের কাছ থেকে গাজা তীর ও সিনাই উপত্যকা দখলে নিয়ে নেয়। এই যুদ্ধের সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়ে ওই অঞ্চলে। কারণ, একই সময় জর্ডানের কাছ থেকে ইসরায়েল দখল নেয় পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেম। অর্থাৎ এ সময় ইসরায়েল পূর্ব জেরুজালেমের বাকি অংশসহ পুরনো শহর দখল করে নেয় এবং পশ্চিম অংশের সঙ্গে একীভূত করে পুরো এলাকাকে ইসরায়েলের অন্তর্গত করে ফেলে। বর্তমানে পুরো এলাকাটি ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণে। জেরুজালেমকে ইসরায়েল তাদের জাতীয় রাজধানী হিসেবে বিবেচনা করে। শরণার্থী হয়ে আসা ইহুদিদের যুদ্ধ, বিদ্রোহে মুসলমানদের হাত থেকে জেরুজালেমসহ ফিলিস্তিনের বড় অংশই আজ ইসরায়েল। সিরিয়ার কাছ থেকে নেয় গোলান উপত্যকা। যুদ্ধ আর থামেনি। দুই পক্ষের মিলিশিয়া বাহিনী দখল-বেদখলের এই লড়াইয়ে কেউ কখনোই পিছু হটেনি। হাজার হাজার যোদ্ধা, বিদ্রোহী প্রাণ দিয়েছেন। আরও সংঘবদ্ধ হয়েছে বিদ্রোহী দলগুলো। ফিলিস্তিনিরা বরাবরই দাবি করে আসছে তাদের স্বাধীন ভূমি। ইহুদি সেটেলাররা পূর্ব জেরুজালেম ধীরে ধীরে দখলে নিয়ে যাওয়ার এই ইতিহাস কারও অজানা নয়। বিভিন্ন যুদ্ধ-বিদ্রোহে ঘর হারানো ইহুদিরা ফিলিস্তিনের একাংশের দখল নিয়ে এই টানাপড়েনের শুরু হয়। মুসলমানরাও তাদের স্বাধীন ভূমির দাবিতে সোচ্চার। ইহুদি ও খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের ঐক্যবদ্ধ আগ্রাসন ওই অঞ্চলে মুসলমানদের জীবন আরও জটিল ও সংকটময় করে তুলে। জেরুজালেমকে দখলে রাখতে মরিয়া ইসরায়েল। নানা রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ও অস্ত্রের শক্তিতে ইসরায়েলি আগ্রাসনে ফিলিস্তিনের শান্তি এখন স্বপ্ন।

১৯০২ সালের মাঝে ৩৫,০০০ ইহুদি চলে আসে ফিলিস্তিনে। এরপর পালাক্রমে আরও কয়েক লাখ ইহুদি শরণার্থী এই অঞ্চলে আশ্রয় নেয়। যেটা এখন ইসরায়েল নামে পরিচিত। ইসরায়েল ১৯৪৮ সালে তাদের স্বাধীনতা ঘোষণা করে। এরপর থেকেই নতুন করে আবার যুদ্ধ, সহিংসতার ইতিহাস লেখা শুরু। ১৯৪৮ সালে প্রথমে অর্ধেকটা, ১৯৬৭ সালে বাকি অর্ধেকটার দখল করে ইসরায়েল। অস্ত্রের  জোরে সমগ্র ফিলিস্তিনসহ জেরুজালেম ইসরায়েল দখল করে রাখে।

 

মুসলিম, খ্রিস্টান ও ইহুদিদের কাছে পবিত্র ভূমি বলে স্বীকৃতি পেয়েছে জেরুজালেম। ফিলিস্তিনি শহর হলেও এখন জেরুজালেম ইসরায়েলের হাতে।

ফিলিস্তিনের ঐতিহাসিক শহর জেরুজালেম। বহু প্রাচীনকাল থেকেই ধর্মীয় গুরুত্ব মিশে রয়েছে এই শহরের সঙ্গে। মুসলিম, খ্রিস্টান ও ইহুদিদের কাছে পবিত্র ভূমি বলে স্বীকৃতি পেয়েছে জেরুজালেম। ফিলিস্তিনি শহর হলেও এখন জেরুজালেম ইসরায়েলের হাতে। অথচ ১৯৬৭ সালের আগেও এটি ছিল মুসলমানদের হাতে। জেরুজালেমের পূর্বাংশ ছিল জর্ডানের। সে যাই হোক, ধর্মীয়ভাবে মর্যাদাসম্পন্ন জেরুজালেমে রয়েছে পবিত্র বায়তুল মুকাদ্দাস। ইহুদি ধর্মাবলম্বীরা এই অঞ্চলকে টেম্পল মাউন্ট নামেও ডাকে। জেরুজালেমে মুসলমানদের পবিত্র আল-আকসা মসজিদ অবস্থিত। খ্রিস্টান ধর্ম বিশ্বাসীদের কাছেও জেরুজালেমের আলাদা মর্যাদা রয়েছে। বেথেলহামে যিশুখ্রিস্ট জন্মগ্রহণ করেন বলেই তারা বিশ্বাস করেন। বাইবেলে বর্ণিত এই বেথেলহাম রয়েছে জেরুজালেম শহরের দক্ষিণাংশে। এই জায়গাটি খ্রিস্টানদের কাছে তাই ধর্মীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া জেরুজালেমে ইহুদিদের পবিত্র ওয়েলিং ওয়াল অবস্থিত। এসব কারণেই বিভিন্ন ধর্মের অনুসারীদের কাছে জেরুজালেমের আলাদা ধর্মীয় গুরুত্ব ও মর্যাদা রয়েছে। পবিত্র ভূমি বলে জেরুজালেমের মর্যাদা রক্ষায় বিভিন্ন সময় শাসকরা জেরুজালেম দখলে রাখার চেষ্টা করেছেন। ইসরায়েলি সেনারা ১৯৬৭ সালের যুদ্ধের পর ফিলিস্তিনিদের হাত থেকে এই শহর কেড়ে নেয়। ফিলিস্তিনিরা এরপর থেকেই জেরুজালেমের অন্যায় দখলের প্রতিবাদে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে আসছে।

 

 

ইসরায়েলি সেনাদের পাহারায় আল-আকসা মসজিদ

 

জেরুজালেমের পুরনো শহরে রয়েছে আল-আকসা মসজিদ। মসজিদুল আকসা বা বায়তুল মুকাদ্দাস ইসলামের তৃতীয় পবিত্রতম মসজিদ। ইসলামের বর্ণনা অনুযায়ী মহানবী হজরত  মুহাম্মদ (সা.) পবিত্র মেরাজের রাতে মসজিদুল হারাম থেকে আল-আকসা মসজিদে এসেছিলেন এবং এখান থেকে তিনি ঊর্ধ্বাকাশের দিকে যাত্রা করেন। মুহাদ্দিসরা একমত যে, সম্পূর্ণ উপাসনার স্থানটিই নবী হজরত সুলায়মান (আ.) তৈরি করেছিলেন। মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ এই মসজিদটি এখন ইসরায়েলের দখলে রয়েছে। ফিলিস্তিনি, আরব অঞ্চলের মুসলিম দেশগুলোসহ বিশ্বের শীর্ষ রাজনৈতিক নেতা ও ইতিহাস গবেষকরা বরাবরই আল-আকসা মসজিদের দখল ছেড়ে দেওয়ার জন্য ইসরায়েলি শাসককে অনুরোধ করে আসছেন। অস্ত্রের জোরে জেরুজালেম দখলে রাখায় ফিলিস্তিনের বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোও জেরুজালেমের দখল পেতে মরিয়া। এ কারণে দুই দেশের মধ্যে সংকট, যুদ্ধ ওই অঞ্চলের স্বাভাবিক জীবন, শান্তি নষ্ট করেছে।

 

পবিত্র ভূমি জেরুজালেমের ইসলামী ঐতিহ্য জবরদখলে আজ ইসরায়েলের মুঠোবন্দী। আল-আকসা মসজিদ পাহারা দেয় ইসরায়েলি সেনারা।

 

বর্তমানে ট্রাম্পের খবরদারিতে সংকট চরমে

 

ইসরায়েল রাষ্ট্রের জন্ম হলেও তাদের দাবিকৃত জেরুজালেমকে রাজধানী হিসেবে কোনো রাষ্ট্রই স্বীকৃতি দেয়নি। জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছিল। বিশ্বের শীর্ষ নেতা ও রাষ্ট্রনায়করাও মার্কিন প্রশাসনকে সতর্ক করছিল— এ ধরনের বিতর্কিত কোনো সিদ্ধান্ত নিতে। এমনকি জাতিসংঘের শীর্ষ পর্যায় থেকেও ট্রাম্পকে বলা হয়েছিল, 

এ ধরনের মন্তব্যে ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের মধ্যে সংকট আরও চরম রূপ নেবে। কিন্তু মিডিয়ার প্রবল সতর্ক বার্তা, সমালোচনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতির কথা বলেন। ইসরায়েলের মিত্র যুক্তরাষ্ট্র কার্যত ফিলিস্তিনের বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোকে উসকে দিয়ে পরিস্থিতি আরও নাজুক করে তুললেন ট্রাম্প।

 

 

বিশ্লেষকদের এই মতামত গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে বিশ্ববাসী। ফিলিস্তিনের সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্কে আরও দূরত্ব তৈরি হলো। যখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বারবার যুক্তরাষ্ট্রকে আহ্বান জানিয়েছে তখন ট্রাম্পের এমন ঘোষণা স্পষ্টতই প্রমাণ করে, এই অঞ্চলের দীর্ঘ বিদ্রোহ, আন্দোলন ও রক্তপাতের ইতিহাস আরও দীর্ঘায়িত করারই প্রচেষ্টা। সবাইকে অগ্রাহ্য করে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার সময় এসেছে। অনেক আগেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল। তার বিতর্কিত এই মন্তব্যের পর তিনি তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস স্থানান্তরের কাজ শুরু করতে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেন। জেরুজালেম ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প স্বীকৃতি দেওয়ার পর বিশ্বব্যাপী তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে।

 

এমনকি ব্রিটেন, ফ্রান্স, সৌদি আরবের মতো যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ দেশগুলোও এই স্বীকৃতিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। এই সিদ্ধান্তকে ‘অযৌক্তিক’ আর ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলে বর্ণনা করেছে সৌদি আরব। এমনকি জেরুজালেমকে ইসরায়েলের একতরফা রাজধানী স্বীকৃতি দিয়ে ট্রাম্পের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করেছে জাতিসংঘ।

 

সম্প্রতি ডোনাল্ড ট্রাম্প মধ্যপ্রাচ্য শান্তিপরিকল্পনায়

 

পুনরায় জেরুজালেমকে ইসরায়েলের অবিচ্ছেদ্য করার অঙ্গীকার করেন! এতে করে মধ্যপ্রাচ্যে চলমান সহিংসতাকে,ইহুদি বসতিকে আরো প্রসারিত করতে উতসাহ দেয় বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন। 

সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইনের সাথে ইসরায়েলের ঐতিহাসিক চুক্তির দিনটিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বললেন 'নতুন মধ্যপ্রাচ্যের ভোর'। কিন্তু ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট বলেন এটা ফিলিস্তিনের বিপক্ষে তার অবস্থান স্পষ্ট করা মাত্র।

 

তবে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপনকে গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করছেন আরব আমিরাত। আবার চুক্তিটি ট্রাম্পরে রাজনীতির সাফল্য ও পররাষ্ট্রনীতির বিরাট অর্জন বলে বিবেচিত হচ্ছে।

জাতিসংঘ সহ বিশ্বের বিভিন্নদেশ দ্বি-রাষ্ট্র প্রক্রিয়াকে সমর্থন করছে।

 

অয়ন
টিম: আলফা
ক্যারিয়ার ক্লাব অব আর্টস ফ্যাকাল্টি
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়     
এই বিভাগের আরও